উদ্যোক্তাদের আইডিয়া | সহজ পণ্য, সফল উদ্যোগ

0
7
উদ্যোক্তা আইডিয়া, entrepreneurship ideas, best uddukta idea, business idea
কোনো পণ্য বা সেবার মাধ্যমে মানুষের সমস্যার সমাধান বা জীবনযাত্রা সহজ করাই হলো উদ্যোক্তাদের কাজ

কোনো পণ্য বা সেবার মাধ্যমে মানুষের সমস্যার সমাধান বা জীবনযাত্রা সহজ করাই হলো উদ্যোক্তাদের কাজ। আপাতদৃষ্টিতে সাধারণ কোনো পণ্যও কখনো কখনো সাড়া ফেলে, গ্রাহকেরা লুফে নেয়। ২০১৮ সালের যুক্তরাষ্ট্রের এমন কিছু সেরা পণ্যের তালিকা তৈরি করেছে ইনক ডট কম। সেখান থেকে বাছাইকৃত ব্যতিক্রম কয়েকটি পণ্যের তথ্য প্রথম আলো পত্রিকায় তুলে ধরেছেন জুবেলী খানম

বিবাহবন্ধনের নতুনত্ব আনতে কেলো

টেড বেকার এবং কেসি হলিডে—যুক্তরাষ্ট্রবাসী দুই বন্ধুর প্রতিষ্ঠিত আংটির ব্র্যান্ড কেলো। বিবাহিত দম্পতিদের একটি সমস্যা দুই বন্ধু অনুধাবন করেছিলেন। তা হলো বিয়ের চিহ্ন, অনামিকায় পরা দামি আংটিটাকে সযত্নে রাখা। কখনো দৌড়ঝাঁপের সময় আংটি খুলে পড়ে যায়। আবার আংটি পরে সব ধরনের কাজ করতেও স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না অনেকে।

best wedding ring, kalo.com, calo.com, qalo.com
বিবাহ বন্ধনের আংটি নিয়ে কেলো.কম

নামের মধ্যেই ব্র্যান্ডটির বিবরণ আছে। কোয়ালিটি (মানসম্পন্ন), অ্যাথলেট (ক্রীড়াবিদ), লাভ (ভালোবাসা) এবং আউটডোরস (বহিরাঙ্গন)—এই চারের সংক্ষিপ্ত রূপ হলো কেলো। বাজারে আসার পর থেকেই তারা এমনভাবে মানুষের আগ্রহ তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে যে অনেক মার্কিন তরুণ-তরুণীই এখন বিয়েতে হীরার আংটির বদলে সিলিকনের তৈরি এই আংটি বেছে নিচ্ছেন। এই আংটি ব্যবহারের ফলে ব্যায়াম
করা, খেলাধুলা, ঘরোয়া কাজসহ অনেক কিছুই সহজ হয়ে যাচ্ছে। অনেক সময় আংটির কারণে হাত কেটে যায়, বা কাপড় আটকে ছিঁড়ে যায়, তাই অনেকেই আংটি খুলে রাখেন। কিন্তু কেলো আংটি সাবধানতার জন্য খুলে রাখার প্রয়োজন পড়ে না।

বিয়ের মতো সুন্দর সম্পর্ক, যা আংটির মাধ্যমে সমাজে যুগ যুগ ধরে বিশেষ গুরুত্ব বহন করে আসছে, সেখানে এই বিষয়টিকে জটিল না করে জীবনকে সহজ করার উদ্দেশ্যে কেলোর যাত্রা। দারুণ সব নকশা আর দেখতে স্মার্ট বলেই এই পণ্য অনেকে লুফে নিচ্ছেন।

কেলোর পণ্যের আরেকটি বিশেষত্ব হচ্ছে, এর মধ্যে ভোক্তাদের চাহিদা অনুযায়ী যেকোনো কিছু লেখা যাবে। যেমন আপনি আপনার বিয়ের তারিখটি বিশেষ নকশায় কিংবা আপনার প্রিয়জনের নাম এই আংটিতে লিখে রাখতে পারবেন। ২০১৮–এর সেরা পণ্যতালিকায় এটি উঠে এসেছে এবং দিন দিন কেলোর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। কেলো ওয়েবসাইটঃ কেলো

মোবাইল ফোন ধরতে পপসকেটস

ধরুন, জরুরি কোনো কাজে ছুটছেন, হাতে ধরা আছে আপনার মোবাইল ফোন। এমন সময় ধপাস করে ফোনটা ভূপতিত হলো। ব্যস, সাধের দামি ফোনটা পর্দায় যদি মাকড়সার জালের মতো একটা আঁকিবুঁকি আঁকা হয়ে যায়, মনটা নিশ্চয়ই খারাপ হবে। ২০১৮ সালের সেরা পণ্যের তালিকায় পপসকেটসের অবস্থান ২ নম্বরে। উদ্ভাবনটা খুব ছোট। মোবাইল ফোনের পেছনে জুড়ে দেওয়া হয় ছোট্ট একটি বস্তু, যা ফোন ধরে রাখতে সহায়তা করে। আর এই বস্তুটিকে বলা হচ্ছে পপসকেটস। পপসকেটস ফোনের সঙ্গে যুক্ত থাকলে ফোন হাতে ধরা অবস্থায় পড়ে যাওয়ার ভয় আর
থাকবে না।

উদ্যোক্তা আইডিয়া, entrepreneurship ideas, best uddukta idea, business idea
কোনো পণ্য বা সেবার মাধ্যমে মানুষের সমস্যার সমাধান বা জীবনযাত্রা সহজ করাই হলো উদ্যোক্তাদের কাজ

এই স্ট্যান্ড থাকার আরেকটা সুবিধা হলো, সেলফি তোলার সময় ফোনটা জুতসইভাবে ধরতে আপনাকে আর বেগ পেতে হবে না। ইয়ারফোন পকেটে রাখতে গিয়ে অনেকে বিড়ম্বনায় পড়েন। এই সমস্যারও সমাধান হতে পারে পপসকেটসের মাধ্যমে। এতে সহজেই হেডফোনের তার পেঁচিয়ে রাখা যায়। মোবাইল ফোন ছাড়াও অন্যান্য ছোট যন্ত্রাংশে পপসকেটস ব্যবহার করা যায়। বাজারে সুন্দর সব নকশা করা পপসকেটস পাওয়া যায়, যা আপনার ফোনের সৌন্দর্য বাড়াতেও ভূমিকা রাখতে পারে।

তা ছাড়া এই স্ট্যান্ড থাকার সুবিধাস্বরূপ সকালবেলা ফোনকে অ্যালার্ম ঘড়ি হিসেবেও ব্যবহার করতে পারবেন; ভিডিও কলে কথা বলা কিংবা সেলফি তোলার সময় সেলফি স্টিকের বদলে এই স্ট্যান্ড আপনার কাজকে সহজ করে দেবে। অনেকেই ইয়ারফোনের তার পেঁচিয়ে যাওয়া নিয়ে পড়ে যান মহা বিড়ম্বনায়। সে ক্ষেত্রে ফোনের পেছনে লাগানো পপসকেটসে আপনার ইয়ারফোনের তার সুন্দর করে পেঁচিয়ে রাখা যাবে। মোবাইল ফোন ছাড়াও অন্যান্য ছোট কিংবা বড় যন্ত্রাংশে এই পপসকেটস ব্যবহার করা যাবে।

ডেভিড বারনেট নামের একজন উদ্যোক্তার হাত ধরে ২০১৪ সালে
যাত্রা শুরু করে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান পপসকেটস এলএলসি। প্রথম বছরে প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ৩০ হাজার পণ্য বিক্রি করেছিল। ২০১৮ সালে তাঁদের লাভের পরিমাণ হয়ে গেল ৯০ মিলিয়ন ডলার বা প্রায় ৭৬৫ কোটি টাকা!

আরামদায়ক ঘুমের জন্য ব্রুকলিনেন

তোশক, বালিশ, চাদর, কম্বল—পণ্য হিসেবে এ আর নতুন কী? কিন্তু এসব বিক্রি করেই মাত্র ২ বছরে ২৫ মিলিয়ন ডলারের (প্রায় ২১২ কোটি টাকা) একটি প্রতিষ্ঠান দাঁড় করিয়ে ফেলেছেন যুক্তরাষ্ট্রবাসী দম্পতি—ভিকি ফুলপ ও রিচ ফুলপ। তাঁদের এই প্রতিষ্ঠানের নাম ব্রুকলিনেন।

ব্রুকলিনেন প্রতিষ্ঠার পেছনের গল্পটা মজার। ভিকি ফুলপ ও রিপ ফুলপ একবার বেড়াতে গিয়ে দামি এক হোটেলে উঠেছিলেন। দামি হোটেল রুমের বিছানার চাদর, বালিশ তাঁদের খুব মনে ধরেছে। নিজেদের ঘরের জন্য সেই একই বিছানা-বালিশ কিনতে গিয়ে দুজন আবিষ্কার করলেন, বাজারে এর দাম প্রায় ৮০০ ডলার (প্রায় ৬৮ হাজার টাকা)! এত দাম দেখে স্বামী-স্ত্রীর চক্ষু চড়কগাছ! টেক্সটাইল সম্পর্কে দুজনের তেমন কোনো ধারণাই ছিল না। পুরো এক বছর ধরে দুজন মিলে বিভিন্ন কারখানা, প্রতিষ্ঠান আর বাজার ঘুরে দেখেছেন। গবেষণা করেছেন। তারপর গড়ে তুলেছেন এই প্রতিষ্ঠান।

বাজারে প্রচলিত প্রতিষ্ঠিত সব ধরনের বিছানা-ব্র্যান্ড থেকে ব্রুকলিনেনের বিশেষত্ব হচ্ছে, এটি পুরোপুরি অনলাইনভিত্তিক। প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন মডেলের বেডশিট, কম্বল, বালিশ বিক্রি করে থাকে। তাদের একটি বিশেষ পণ্য হলো ‘ব্রুকলিটল’, যার মাধ্যমে শিশুদের জন্য উচ্চমানের বিছানা-বালিশ সরবরাহ করা হয়।

প্রতিষ্ঠানের পরিধি বড় করার অংশ হিসেবে এটি বর্তমানে বাথরুমের তোয়ালে, বাথশিট থেকে শুরু করে ওয়াশ ক্লোথ এবং বাথ ম্যাটসও তৈরি করছে। উচ্চ মানের পণ্য সরবরাহ করার জন্য কোম্পানিটি নিজস্ব পরিবেশবান্ধব লন্ড্রি সার্ভিসও শুরু করেছে। তাঁদের মটো হলো—ব্রুকলিনেন: সুইট ড্রিমস। মানুষকে সুন্দর স্বপ্ন দেখানোর বার্তা নিয়ে যারা বাজারে এসেছে, ২০১৮ সালের সেরা পণ্যের তালিকায় তাদের অবস্থান ২৫তম।

তথ্যসূত্রঃ প্রথম আলো

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here